Tech News

যে ৭টি বিষয় দেখে রাউটার কিনবেন? 

যে ৭টি বিষয় দেখে রাউটার কিনবেন? 

ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের জন্য রাউটার একটি গুরুত্বপুর্ণ বিষয়। কারন একটি wireless router এর মাধমে একসাথে অনেকজন ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারে। তাই সঠিক router টি বেছে নেয়া খুবই গুরুত্বপুর্ণ। তাই আজকে আমাদের আলোচনার বিষয়বস্তু থাকছে router নির্বাচনের ক্ষেত্রে আপনি কী কী বিষয় মাথায় রাখবেন।

যে ৭টি বিষয় দেখে রাউটার কিনবেন? 

আসুন জেনে নেয়া যাক যে ৭ টি বিষয় মাথায় রেখে আপনি রাউটার নির্বাচন করবেনঃ

১। ব্যবহারকারীর সংখ্যাঃ

কারণ একটি Router এর মাধ্যমে ১ থেকে ৫১ বা তদূর্ধ জন একসাথে ইন্টারনেট ব্যাবহার করতে পারে। ফলে এর দাম ও ফিচারও ভিন্ন ভিন্ন হবে। আপনি আপনার সুবিধামত কনকারেন্ট ইউজারের সংখ্যা বেছে নিতে পারেন।

২। Router এর ব্যান্ডের বিষয়ঃ

এই বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। রাউটারের ব্যান্ড বলতে রাউটারের নেটসংযোগের বিষয়টি বুঝানো হয়ে থাকে। রাউটারের ব্যান্ড যত বেশি হয়ে থাকে তার গতিও তত বেশি হয়ে থাকে। রাউটারে তিন ধরনের ব্যান্ড থাকেঃ সিঙ্গেল, ডুয়েল ও ট্রাই। সিঙ্গেল ব্যান্ড রাউটারে ২.৪ গিগাহার্টজের একটি নেটওয়ার্ক থাকে।ডুয়েল ব্যান্ডের রাউটারে ২.৪ গিগাহার্টজের পাশাপাশি ৫ গিগাহার্টজের আরও একটি নেটওয়ার্ক থাকে। ট্রাই ব্যান্ডে একটি ২.৪ গিগাহার্টজের এবং দুটি ৫ গিগাহার্টজের নেটওয়ার্ক থাকে। আপনি যদি একই সাথে ১০ বা তার অধিক ইউজার ব্যবহারের পরিকল্পনা করেন তাহলে ট্রাই ব্যান্ডের বিকল্প নেই। কিন্তু বাসা বাড়ি বা ছোট অফিসের জন্য ২.৪ গিগাহার্টজের রাউটারই যথেষ্ঠ।

৩। Router এর প্রসেসর বা র‍্যামঃ

ওয়্যারলেস রাউটার নির্বাচনের ক্ষেত্রে আমরা সচরচার প্রসেসর বা র‍্যামের বিষয়টি খুবই গুরুত্ব দিয়ে থাকি। কিন্তু পারফরমেন্সের বিচারে প্রসেসর বা র‍্যাম এই দুটি হার্ডওয়্যার রাউটারের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা যদি মিডিয়া স্ট্রিমিং, অনলাইন গেম অথবা ডেটা ব্যাকআপের মত ভারী কাজ করতে চাই, তাহলে প্রসেসর বা র‍্যাম হাই কনফিগারেশনের হওয়া দরকার। কারণ এই ধরনের কাজে প্রচুর পরিমানে ডেটা ট্রান্সমিট হয়, ফলে রাউটারের প্রসেসিং ক্ষমতাও বেশি থাকা দরকার। সো আপনি যদি ভারীকাজ করে থাকেন তাহলে ডুয়েল কোর প্রসেসর ও ১২৮ মেগা বাইট র‍্যাম বাছাই করেন। আর বাসা বাড়ি অথবা সিঙ্গেল ইউজারের জন্য সিঙ্গেল কোর প্রসেসর ও ৩২ মেগা বাইট র‍্যামই যথেষ্ঠ।

৪। নেটওয়ার্ক কাভারেজঃ

এই বিষয়টিও আপনাকে গুরুত্ব দিতে হবে। কারন কতদূর থেকে আপনি নেটওয়ার্ক কাভারেজ পেতে চান, সেটা আপনাকে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে। ১ থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৫০০০ স্কয়ারফিট এর বেশি এরিয়া পর্যন্ত নেটওয়ার্ক কাভারেজ দেয়ার মত ভিন্ন ভিন্ন Router রয়েছে।

২০ হাজার টাকার মধ্যে সেরা ১০ টি গেমিং ফোন রিভিউ | Gaming Phone in Bangladesh

৫। ব্যান্ডউইথ কনট্রোলঃ

মনে করুন আপনারা একসাথে একাধিক ইউজার একসাথে একটিমাত্র Router এর মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহার করে থেকেন। কিন্তু আপনি একটি ভারী কাজ করছেন যা খুবই আপনার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এই সময় অন্য একজন ইউজার কোন ভারী ফাইল ডাউইনলোড দিচ্ছে। তাহলে আপনার কাজে ব্যাঘাত ঘটতে পারে। তাই আপনার রাউটারে যদি ব্যান্ডউইথ কনট্রোল থাকে তাহলে আপনি তাদের স্পিডটা একটু কমিয়ে দিয়ে আপনার স্পিডটা একটু বাড়িয়ে নিতে পারেন যা আপনার কাজের জন্য সহায়ক হবে।

৬। USB Port 3.0:

এই ফিচারটি আপনার Router এর সাথে অন্যান্য এক্সটারনাল হার্ডড্রাইভ গুলোকে একই নেটওয়ার্কের আন্ডারে সংযুক্ত করে থাকে। USB 2.0 এর থেকে USB 3.0 হলো এটার গতি একটু বেশি।

৭। অন্যান্য ফিচার যেমন Built in Antivirus, VPN Support, MIMO Technology, Mesh Technology সাপোর্টেডঃ

আপনাকে উপরোক্ত বিষয়গুলি ছাড়াও এই ফিচারগুলি আছে কী না তা দেখে Router কেনা উচিৎ। ধরুন আপনি খুবই গুরুত্বপুর্ণ কাজ করেন আর হ্যাকারেরা আপনার রাউটারটি হ্যাক করে ফেলতে পারে, বিভিন্ন ম্যালওয়ারের মাধ্যমে। ফলে আপনার রাউটারটি যদি Built in Antivirus ফিচারটি থাকে তাহলে এই সমস্যা আর থাকবে না। আপনি থাকবেন সবসময় নিরাপদ। এছাড়া VPN Support, MIMO Technology এবং Mesh Technology আপনাকে দারুনভাবে সাহায্য করতে পারে।

এই গুরুত্বপূর্ণ ডিভাইসটি কেনার জন্য আপনার সিদ্ধান্ত খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনি router price in BD এ সার্চ করে ভালমানের রাউটার দেখতে ও তা সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা পেতে পারেন বিভিন্ন ওয়েবসাইটের রিভিউ, স্পেসিফিকেশন দেখে। আশা করছি আজকের এই লিখাটি আপনাকে সঠিক রাউটার বাছাই করতে সাহায্য করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button